Select Page

দি কেবিন ঢাকা’য় কেন ঢাকাবাসী কোকেইন আসক্তির কার্যকর চিকিৎসা সেবা পাবেন

ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকায় বহুদিন থেকেই অনেক কোকেইন ব্যবহারকারীর মধ্যে আসক্তি তৈরি হলেও, গত দশ বছরে এশিয়ার সর্বত্র এর ব্যবহার এবং আসক্তি বৃদ্ধি পেয়েছে, যা কোকেইন আসক্তি চিকিৎসা কেন্দ্রের চাহিদাও বাড়িয়েছে। কোকেইন একটি উত্তেজক, যেটা সাধারনতঃ শ্বাসের মাধ্যমে নেয়া হয়, তবে ধূমপান বা ইঞ্জেকশনের মাধ্যমেও এটা গ্রহন করা যায়।

কোকেইন ব্যবহারের ফলে শক্তি, আত্নবিশ্বাস এবং অতি উৎফুল্লভাব সাময়িকভাবে বৃদ্ধি পায়; সময়ের সাথে সাথে এই একই প্রভাব পেতে ব্যবহারকারীকে বেশি পরিমাণ কোকেইন নিতে হয়।

শতকরা ৫% প্রথমবার কোকেইন ব্যবহারকারী এবং ৯০% নিয়মিত কোকেইন ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে প্রমান পাওয়া গেছে যে, এটা আসক্তি সৃষ্টি করে (যা প্রাথমিকভাবে মানসিক হলেও কিছু শারীরিক লক্ষন/উপসর্গ দেখা যায়)। কোকেইন আসক্তির ক্ষেত্রে টলারেন্স/সহনীয়তা ও ব্যবহারের ক্রমঃবৃদ্ধি এবং ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে জানা যায় যে, খুব অল্প সময়ের মধ্যে তাদের কোকেইন ব্যবহারের পরিমান দ্রুত বেড়ে যায়।

একটি প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণা আছে যে, কোকেইন একটি “অভিজাত” মাদক এবং এর ফলে এটাকে অন্যান্য স্টিমুলেন্ট যেমন ক্র্যাক বা মেথ-এর চেয়ে নিরাপদ এবং বেশী গ্রহনযোগ্য হিসেবে ধরা হয়। যেহেতু অন্যান্য অনেক ড্রাগের চেয়ে এটা বেশী দামী, কোকেইন ব্যবহারকারীরা সাধারণত এটাকে একটি “আভিজাত্যের প্রতীক” হিসেবে দেখে থাকে ।

কিছু নির্দিষ্ট পেশাজীবি এবং আর্থ-সামাজিক দলের মধ্যে কোকেইন ব্যবহার বেশী দেখা গেলেও; সমাজের সব শ্রেনীর মধ্যেই কোকেইন ব্যবহার খুজে পাওয়া যায়।ক্লায়েন্টদের মতে, কোকেইন তাদের জীবন যাপনের একটি সম্পূরক অংশ হিসেবে কাজ করে, আর তাই কোকেইন আসক্তি/নির্ভরশীলতা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য এবং পুনঃআসক্তির সম্ভাবনাকে হ্রাস করার জন্য, তাদের জীবন যাপন পদ্ধতিতে বড় রকম পরিবর্তন আনা আবশ্যক।

দি কেবিন ঢাকা – কেন কোকেইন আসক্তি চিকিৎসার জন্য সঠিক পছন্দ

কোকেইন (কিংবা বহুবিধ নেশাজাতীয় দ্রব্য) আসক্তির চিকিৎসার ক্ষেত্রে দি কেবিন কগনিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপির কৌশলসমূহ এবং আসক্তি বিরতির লক্ষ্যগুলোর উপর ভিত্তি করে একটি ব্যক্তিকেন্দ্রিক চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকে। একক এবং দলগত উভয় প্রকার কাউন্সেলিং সুপারিশ করা হয় এবং বর্হিবিভাগীয় রোগী হিসেবে চিকিৎসার ক্ষেত্রে সাধারনতঃ ৬-৮ সপ্তাহ লাগে। যেসব ক্লায়েন্ট মনে করেন, তাদের রিল্যাপ্স/পুনঃআসক্তির সম্ভাবনা খুব বেশী, তাদেরকে দি কেবিন চিয়াং মাই-এ দি কেবিন-এর আবাসিক কার্যক্রম প্রস্তাব করা হয়।

কোকেইন প্রত্যাহারের সময়/উইথড্রয়াল সৃষ্ট উপসর্গসমূহ সাধারনতঃ জীবননাশের হুমকী হয়ে দাঁড়ায় না [তবে সারা বিশ্বে মাত্রাতিরিক্ত (ওভারডোজ) কোকেইন গ্রহনের ফলে মৃত্যুর ঘটনা বেড়ে যাচ্ছে]।

দি কেবিন চিয়াং মাই-এ কোকেইন আসক্তির আবাসিক চিকিৎসা পুর্নবাসনকেন্দ্র

দি কেবিন চিয়াং মাই

ঢাকা থেকে একটা সংক্ষিপ্ত ফ্লাইট-এ পৌছেঁ যাওয়া যায় চিয়াং মাই-এ। দি কেবিন চিয়াং মাই রিসোর্ট-স্টাইলের একটি বিলাসবহুল ব্যবস্থাপনা। অভিজ্ঞ এবং লাইসেন্সপ্রাপ্ত পশ্চিমা কাউন্সেলর এবং মনোবিজ্ঞানী ছাড়াও, এখানে ডাক্তার এবং নার্সদের সমন্বয়ে দক্ষ একটি মেডিকেল টিম ক্লায়েন্টদের সেবায় সার্বক্ষনিক (২৪ ঘন্টা) কাজ করছে। মাইন্ডফুলনেস প্র্যাক্টিসের উপর সুগভীর নজর দেয়ার সাথে সাথে; প্রাত্যহিক প্রোগ্রামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে ব্যক্তিগত ফিটনেস/উপযুক্ততাকে বিবেচনা করা হয়। পৃথিবী খ্যাত-থাই আথিথেয়তা এবং চমৎকার সেবা সৌজন্যেও অত্যন্ত সফল এই চিকিৎসা প্রোগ্রাম, যার সফলভাবে সম্পূর্ণতার হার ৯৬%।

 

এখনই সাহায্য নিন

কোকেইন আসক্তির চিকিৎসা কার্যক্রম সম্পর্কে আরো জানতে বা বাধ্যবাধকতাহীন পরিমাপনের/এ্যাসেসমেন্টের জন্য আজই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন এবং দেখুন কিভাবে আমরা আপনাকে সাহায্য করতে পারি। আরোগ্যের পথে এখনই আপনার যাত্রা শুরুর জন্য এই পৃষ্ঠার উপরে ডানদিকে সংক্ষিপ্ত ফরমটি পূরণ করুন, অথবা সরাসরি আমাদেরকে কল করুন এই নাম্বারে +০১৭৭১৫২৮০৮৬

এখনই আমাদের ফোন করুন
+৮৮০১৭৭১৫২৮০৮৬

আমাদের পুস্তিকা ডাউনলোড করুন