Select Page

দি কেবিন ঢাকায় কেন ঢাকাবাসী ট্রমা/মানসিক আঘাত এবং আসক্তির ফলপ্রসু চিকিৎসা খুজেঁ পাবে

মানসিক আঘাত এবং আসক্তি প্রায়ই সমানত্মরালভাবে চলে। ক্লায়েন্টদের নিবিড় পর্যবেক্ষন এবং মূল্যায়নে কিছু ৰেত্রে দেখা গেছে যে, যারা নেশা বা অ্যালকোহল আসক্তিতে ভুগছে, তারা তাদের কিছু অনাকাংখিত এবং অস্বসত্মিকর/ক্ষতিকর অনুভূতিগুলো থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য বা লুকানোর জন্য সচেতন ভাবেই নেশাদ্রব্য গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নেশাদ্রব্য গ্রহনের মাধ্যমে মানুষ যেসব মানসিক রোগকে লুকিয়ে রাখতে/গোপন করতে চায়, সেগুলোর মধ্যে উদ্বিগ্নতা সবচেয়ে বেশী/অন্যতম। উদ্বেগজনিত মানসিক রোগগুলোর মধ্যে আঘাত পরবর্তী মানসিক চাপজনিত রোগ সবচেয়ে বেশী দেখা যায়।

আঘাত পরবর্তী মানসিক চাপজনিত রোগ(পিটিএসডি) কি?

আঘাত পরবর্তী মানসিক চাপজনিত রোগ (পিটিএসডি) একটি বিশেষ উদ্বেগজনিত মানসিক সমস্যা, যা মানসিক আঘাত থেকে তৈরি হয়। জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ যেকোন ঘটনা, মানসিক আঘাত/ট্রমা, যেমন – যুদ্ধ, গাড়ি দুর্ঘটনা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ অথবা যেকোন ধরনের নির্যাতন অথবা এটি হতে পারে এমন একটি ঘটনা যা ব্যক্তির শারিরিক, যৌন বা মানসিক সম্পূর্নতার জন্য হুমকিস্বরূপ৷ যেমন – যৌন নির্যাতন, শারিরিক নির্যাতন এবং শৈশব ও প্রাপ্ত বয়সের সম্পর্কজনিত ট্রমা।

পিটিএসডির উপসর্গসমূহ

যখন কারো পিটিএসডি হয়, তখন তারা বিভিন্নভাবে ঐ ঘটনাগুলোর মধ্যেই বসবাস করতে থাকে। এক্ষেত্রে যা ঘটে তা হল, স্মৃতিগুলো চোখে ভেসে ওঠা, দুঃসহ স্মৃতি, স্বপ্ন, বিচ্ছিন্ন শব্দ এবং গন্ধে প্রতিক্রিয়া করা ইত্যাদি৷

তারা উদাসীনভাবে ঐ স্মৃতিগুলো এড়িয়ে চলতে চেষ্টা করে এবং জীবনের প্রতি অনীহা তৈরি হয়, প্রায়ই তারা আংশিক ঘটনা মনে করতে পারে, অন্যদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখে এবং নিজেদেরকে গুটিয়ে নেয়। দেখতে বিষন্নতার মতো মনে হলেও এটি আসলে পিটিএসডি।

তাদের মধ্যে অতি-সতর্কতা দেখা যেতে পারে (অতিমাত্রায় হুমকির প্রতি সজাগ) অথবা অতি আবেগীয় ক্ষেত্রে চুপচাপ/নিশ্চল হয়ে যেতে পারে, এবং ঘুম আসাটা কঠিন হতে পারে। ভুক্তভোগী খুবই উদ্বিগ্নতায় থাকে বা মনে হয় যে, তাদের ভিতরের কল-কব্জা সব সময় চালু আছে।এই অতি সক্রিয়তা থেকে বিরক্তি, রাগের তীব্র বহিঃপ্রকাশ, ঘুমের সমস্যা ,মনোযোগে অসুবিধা হতে পারে। তাদেরকে অবশ্যই সবসময় জেগে থাকতে হবে বা পাহারা দিতে হবে এমন অনুভূতিও হতে পারে।

যদিও সব ক্লায়েন্টদের ক্ষেত্রে পিটিএসডির সব চিকিৎসাগত বৈশিষ্ট্য পুরোপুরি মেলে না, তবে যারা নেশা আসক্ত তাদের অনেকের ক্ষেত্রে পিটিএসডির অনেক বৈশিষ্ট্যই দেখা যায়।

পিটিএসডি যদি চিহ্নিত করা না হয় এবং চিকিৎসা করা না হয়, তবে এটি ব্যক্তিকে মাদক আসক্তি এবং আবেগজনিত মানসিক রোগ যেমন – বিষন্নতার দিকে ঠেলে দেয় এবং এর ফলে সম্পর্কের উপর খুবই নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

যখন কোন ব্যক্তি একই সাথে মাদকাসক্তি এবং ট্রমায় ভোগে তখন কাঙ্খিত/পরিমাপযোগ্য ফলাফল পাওয়ার জন্য চিকিৎসার সমন্বয় করা হয়। পিটিএসডির চিকিৎসা বাদ দিয়ে নেশা গ্রহণ কমানো শুধুমাত্র ব্যক্তির উদ্বেগই বাড়াবে তা নয় বরং পুনরায় নেশায় আসক্ত হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেবে। যখন ব্যক্তি নিজ থেকে ঔষধ/চিকিৎসা নেয়, তখন যদি পিটিএসডিকে চিকিৎসার আওতায় নিয়ে আসা হয়, তাহলেই সাইকো থেরাপি ফলপ্রসূ হবে। এমন একটি থেরাপি মডেলের ব্যবহার, যেখানে ব্যক্তির মূল ট্রমা এবং এর পরবর্তী/ফলস্বরূপ নেশা দ্রব্যের অপব্যবহার নিয়ে কাজ করা হয়, এটি ক্লায়েন্টকে তার পূর্বের সুস্থ সুন্দর জীবনে নিয়ে যেতে পারবে। এই থেরাপি মডেল একই সাথে ব্যক্তির এই মানসিক রোগগুলোর পুনরায় হবার সম্ভাবনা রোধ করার কৌশলগুলো আয়ত্ব করতে সাহায্য করে।

ট্রমা/মাদকাসক্তির বর্হিবিভাগীয় চিকিৎসা কার্যক্রমে একই রকম সময় লাগে (প্রায় ৬-৮ মাস), কিন্তু এক্ষেত্রে প্রতি সপ্তাহে অতিরিক্ত আরেকটি করে সেশন লাগতে পারে। আমরা খুবই গুরুত্বের সাথে এই থেরাপি মডেল আমাদের প্রতিষ্ঠানের সাইকিয়াট্রিস্ট/মনোচিকিৎসকের সাথে আলোচনা করতে বলি, যাতে তারা শুধুমাত্র রাসায়নিক আসক্তিই নয় বরং যদি উদ্বেগ বিরোধী কোন ঔষধ নিয়ে থাকেন অথবা কোন ঔষধ প্রয়োজন হয় এসব দিকগুলো বিবেচনা করে থাকেন।

যেসব ক্লায়েন্টদের আরও নিবিড় থেরাপি লাগে বা আরও নিরাপদ পরিবেশের প্রয়োজন হয়, তাদের থাইল্যান্ডের চিয়াং মাইতে অবস্থিত আমাদের আবাসিক চিকিৎসার জন্য সুপারিশ/প্রস্তাব করা হয়।

দি কেবিন চিয়াংমাই-তে ট্রমা/মানসিক আঘাত এবং আসক্তির আবাসিক পুনর্বাসন চিকিৎসা

দি কেবিন চিয়াং মাই

দি কেবিন চিয়াং মাই-এর সুবিধা হচ্ছে এটি সবুজ শ্যামলীমাময়, গ্রীষ্মমন্ডলীয় উপবন/মলয় ঘেরা শান্ত নির্মল নদীর তীরে অবস্থিত। একটি অনন্য/অদ্বিতীয় আবাসিক পুনর্বাসন কেন্দ্র হিসেবে তৈরি করার লৰ্যে আমাদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে পশ্চিমা চিকিৎসা সেবা এবং পূর্বের বন্ধুত্বসুলভ আতিথেয়তার সম্মিলন করা হয়েছে। গর্বের সাথে বলা যায় যে, এই কার্যক্রমের সফল সমাপ্তি হার ৯৬%। আমরা রোগীদের শারিরিক এবং মানসিক চিকিৎসাগত অবস্থার উপর গুরুত্ব দেই, কিন্তু এটি আমাদের মূখ্য উদ্দেশ্য নয় এবং এর বাইরেও আমরা সার্বিক ব্যায়ামের ব্যবস্থা রেখেছি, যা তাদের শরীর ও মনকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে। দি কেবিন চিয়াং মাই ঢাকাবাসীর জন্য নিরাপদ ও উপযোগী সুযোগ সুবিধা প্রদান করে, যাতে তারা তাদের আরোগ্যের জন্য নতুন জীবন শুরু করতে পারে।

এখনই সাহায্য নিন

ট্রমা এবং আসক্তির চিকিৎসা সম্পর্কে আরো জানতে এবং বাধ্যবাধকতাহীন পরিমাপনের/এ্যাসেসমেন্টের জন্য আজই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন এবং দেখুন কিভাবে আমরা আপনাকে সাহায্য করতে পারি। আসক্তি থেকে মুক্তির পথে এখনই আপনার যাত্রা শুরুর জন্য এই পৃষ্ঠার উপরে ডানদিকে সংক্ষিপ্ত ফরমটি পূরণ করুন, অথবা সরাসরি আমাদেরকে ফোন করুন এই নাম্বারে +০১৭৭১৫২৮০৮৬

এখনই আমাদের ফোন করুন
+৮৮০১৭৭১৫২৮০৮৬

আমাদের পুস্তিকা ডাউনলোড করুন